শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০, ০২:৪৪ অপরাহ্ন

সেহাচরে বেপরোয়া কিশোরগ্যাং সানি বাহিনী

স্টাফ রিপোর্টার : ফতুল্লার সেহাচর তক্কারমাঠ বড়বাড়ি এলাকায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছে কিশোরগ্যাং প্রধান সানি ও তার বাহিনী। একেরপর এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছে এই কিশোররা। আধিপত্ত বিস্তারকে কেন্দ্র করে এমন সন্ত্রাসী কর্মকান্ড সংঘঠিত হচ্ছে। এমনকি মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রন, মাদক সেবন, স্কুল কলেজ পড়ুয়া মেয়েদের ইভটিজিং ও ছিনতাইয়ের মত ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে তারা। থানায় অভিযোগ দিলেও প্রতিকার পাচ্ছেন না ভুক্তভুগিরা।

সূত্র জানায়, গত সোমবার (২ মার্চ) রাতে ফতুল্লার সেহাচর গনি হাজী বাড়ি এলাকায় অভিযুক্ত কিশোর সন্ত্রাসী আক্কাস মিয়ার ছেলে সানি, সাঈদ মিয়ার ছেলে ফারিদ, তাদের সহযোগি শান্ত, রিয়াজ, হামিদুল ও বাবুসহ অজ্ঞাত ১০/১২ জনের একটি অস্ত্রধারি দল রাব্বি নামে এক যুবককে অস্ত্র ঠেকিয়ে তার বেতনের সাড়ে ষোল হাজার টাকা কেড়ে নেয়। এতে বাধা দেয়ায় ভুক্তভুগি রাব্বি ও তার সহযোগি রবিউল (১৮) নামে এক কিশোরকে পিটিয়ে এবং কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে সানি গ্রুপ। হামলা ও ছিনতাইয়ের পর হত্যার হুমকি দিয়ে পালিয়ে যায় অভিযুক্তরা। এরপর আহত রাব্বি ও রবিউলকে উদ্ধার করে খানপুর ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় আহত রাব্বি বাদি হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

আহত রাব্বি (২৩) ফতুল্লার সেহাচর উকিল বাড়ি এলাকার মজিবর মিয়ার ছেলে এবং রবিউল (১৮) একই এলাকার রতন মিয়ার ছেলে।

এলাকা সূত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে এমন সন্ত্রাসী হামলার পর থানায় অভিযোগ দায়ের করলেও আজ মঙ্গলবার সকালেই আবারও ধারালো অস্ত্র হাতে মহড়া দিয়েছে ওই সন্ত্রাসীরা। এতে করে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বাদি সহ আহত রবিউল ও তার পরিবারের সদস্যরা। শঙ্কিত হয়ে পড়েছে দক্ষিন সেহাচর এলাকার শান্তিপ্রিয় বাসিন্দারাও।

সূত্র আরো জানায়, গত রোববার (১ মার্চ) রাতে দাপা ইদ্রাকপুর পুরাতন ক্যালিক্স স্কুলের সামনে জয় নামে এক যুবককে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে তার মোবাইল কেড়ে নেয় অভিযুক্ত সানি গ্রুপের কিশোরগ্যাং সদস্যরা। এ ঘটনায় ভুক্তভুগি জয় বাদি হয়ে গত রোববার রাতেই ফতুল্লা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

ওই কিশোরগ্যাংয়ের এমন সন্ত্রাসীকান্ডে শঙ্কিত হয়ে পড়া মানুষদের দাবি, এদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে নির্মূল করা না গেলে, যেকোন সময়ে আবারও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ সংঘঠিত করে আইন শৃঙ্খলার অবনতি ঘটাতে পারে।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আসলাম হোসেন বলেন, কিশোরগ্যাং থেকে শুরু করে যেকোন সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে পুলিশ হার্ড লাইনে আছে। সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। প্রত্যেককেই গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

আপনার মতামত লিখুন........


© All rights reserved © 2018 Alokitonarayanganj24.net
Design & Developed BY N Host BD
error: দুঃখিত রাইট ক্লিক গ্রহনযোগ্য নয় !!!